আজ পাঞ্জাবের হরিয়ানা হাইকোর্টে আত্মসমর্পণ করতে যাবেন হানিপ্রীত। কিন্তু এর আগে হানিপ্রীতকে ঘিরে ঘটনার যেনো কোনো শেষ ছিল না। বাবা’র সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্ক, রাম রহিমকে গ্রেফতারের পর পাঞ্জাবে সহিংসতার পরিকল্পনাকারী, দেশদ্রোহী, অনৈতিক কার্যকালাপের সঙ্গে জড়িত হিসেবে হানিপ্রীতের নাম বার বার উঠে এসেছে।

হানিপ্রীতকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট রহস্যগুলোর জট খোলার অপেক্ষায় পুরো ভারত। আত্মসমর্পণের আগে ভারতীয় এক টিভি চ্যানেলকে সাক্ষাতকার দিয়ে নিজের এবং বাবা রাম রহিমের পক্ষে সাফাই গাইলেন তিনি।

ধর্ষণের দায়ে রাম রহিম কারাগারের যাওয়ার পর থেকেই আত্মগোপনে চলে যান তারই পালিতকন্যা হানিপ্রীত। এরপরই হানিপ্রীতের বিরুদ্ধে একে একে অভিযোগ আসতে থাকে।

যার মধ্যে সবচেয়ে আলোচিত ছিল রাম রহিমের সঙ্গে হানিপ্রীতের শারীরিক সম্পর্ক। তার স্বামী তো বটেই, আরও অনেকেই আপত্তিকর অবস্থায় দেখেছেন তাদের। এই অভিযোগ অস্বীকার দিলেন হানিপ্রীত ইনসান। হানিপ্রীতের প্রশ্ন, কোন বাবা কি তার মেয়েকে ভালোবেসে মাথায় হাত দিতে পারেন না? মেয়ে ভালোবেসে বাবাকে জড়িয়ে ধরতে পারে না?

এদিকে হানিপ্রীতের সাবেক স্বামী বিশ্বাস গুপ্ত অবশ্য অভিযোগ করেছেন, রাম রহিমের সঙ্গে বিছানায় অন্তরঙ্গ অবস্থায় স্ত্রীকে দেখে ফেলেন তিনি। সিরসায় ডেরা সাচা সৌদা সদর দফতরেও একই কাণ্ড চলত বলে তার দাবি। তার আরও অভিযোগ, রাম রহিম তাকে সে সময় ঘরের বাইরে দাঁড়িয়ে থাকতে বলতেন। হুমকি দিতেন, কাউকে কিছু না বলতে।

তার স্বামীর এ অভিযোগের কথা জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি এ ব্যাপারে কোনো কথা বলতে চাননি।

উল্টো হানিপ্রীত পাল্টা প্রশ্ন ছুঁড়ে দেন, লোকে কেন তার ও রাম রহিমের বাবা-মেয়ের সম্পর্কে কালি ছেটাচ্ছে। তাদের বিরুদ্ধে নোংরা প্রচার চলছে। একজন বাবা কী তার মেয়েকে ভালোবাসতে পারেন না!

সেই সঙ্গে পাঞ্জাব হারিয়ানা কোর্টে এসে আইনি লড়াই করবেন বলেও জানিয়েছেন হানিপ্রীত।