৭০০ বছর আগেকার চিতোরের রানি পদ্মিনীর জীবন নিয়ে নির্মিত বলিউড ছবি ‘পদ্মাবতী’র মুক্তিকে কেন্দ্র করে ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে প্রতিবাদের ঝড় বইছে। রাজস্থান, গুজরাট, হরিয়ানা, মহারাষ্ট্রসহ বিভিন্ন রাজ্যে রাজপুত সংগঠনগুলো এই ছবিটির বিরুদ্ধে তীব্র বিক্ষোভ প্রকাশ করেছে। অনেক জায়গাতেই বিজেপি নেতারাও এই দাবিতে সমর্থন দিচ্ছে।

ভারতের রাজপুতানার ইতিহাসে দেখা যায়, দিল্লির শাসক আলাউদ্দিন খিলজির কবল থেকে রক্ষা পেতে রানি পদ্মিনী ১৬ হাজার নারীকে নিয়ে চিতায় ঝাঁপ দিয়েছিলেন। কিন্তু ‘পদ্মাবতী’ ছবিতে তার সেই মর্যাদা ও আত্মত্যাগকে খাটো করা হয়েছে বলে মনে করছেন বিক্ষোভকারীরা।

বলিউডের স্বনামধন্য নির্মাতা সঞ্জয় লীলা বানশালীর বিগ বাজেট ছবি ‘পদ্মাবতী’ মুক্তির আর বেশিদিন নেই। আসছে ১ ডিসেম্বর মুক্তি পাওয়ার কথা রয়েছে। কিন্তু এরই মধ্যে এই ছবির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ রাজস্থানের গণ্ডি পেরিয়ে ছড়িয়ে পড়ছে ভারতের নানা প্রান্তে।

গেলো রোববার গুজরাটের সুরাট-গান্ধীনগরে লাখো মানুষের সমাবেশ হয়েছে পদ্মাবতীর বিরুদ্ধে, হরিয়ানাতে বিজেপির ক্যাবিনেট মন্ত্রীরা বলেন, এই ছবি মুক্তি পেলে রাজ্যে সমস্যা হবে। রাজপুত কার্নি সেনা নামে যে সংগঠন ছবির শুটিংয়েও বাধা দিয়েছিল, তাদের প্রতিষ্ঠাতা লোকেন্দ্র সিং কালভি জানায়, যেকোনোভাবে এই ছবির মুক্তি রুখতে চাই আমরা। ইতিহাসকে বিকৃত করার যেকোনো চেষ্টা আমরা আটকাব, আমরা বেঁচে থাকতে আমাদের মেয়ে-বোনদের অমর্যাদা কিছুতেই হতে দেব না।

পরিচালক সঞ্জয় লীলা বানশালীর ছবিটিকে রুখে দেয়া এখন রাজপুত মর্যাদা রক্ষার সমার্থক হয়ে দাঁড়িয়েছে, আর পরিস্থিতিকে আরো জটিল করে তুলেছে গুজরাটের আসন্ন নির্বাচন। ছবির প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন অভিনেত্রী দীপিকা পাডুকোন।