কম্বোডিয়া সফরের প্রথম দিনে গণহত্যা স্মৃতি জাদুঘর পরিদর্শন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর আগে দেশটির স্বাধীনতা স্তম্ভ ও দেশটির জাতির জনকের সমাধিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ করেন তিনি।
তিন দিনের সরকারি সফরে রোববার দুপুরে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশ কম্বোডিয়ায় পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী। পরে নম পেন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে লাল গালিচা সংবর্ধনা দেয়া হয়।
বিমানবন্দর থেকে সরাসরি হোটেল সোফিটেলে ওঠেন তিনি। হোটেলে কিছুক্ষণ বিশ্রামের পর স্থানীয় সময় বেলা সাড়ে ৩টার দিকে স্বাধীনতা স্তম্ভে যান শেখ হাসিনা।
শেখ হাসিনা স্মৃতিস্তম্ভে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানোর সময় তাকে স্ট্যাটেটিক গার্ড অব অনার দেয় কম্বোডিয়ার সশস্ত্র বাহিনীর একটি দল। এরপর কম্বোডিয়ার প্রয়াত রাজা নরোদম সিহানুকের রাজকীয় স্মৃতিমূর্তিতেও ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান শেখ হাসিনা।
তারপর তিনি যান নম পেন শহরের তৌল সেং গণহত্যা জাদুঘর পরিদর্শনে। শেখ রেহানার সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী মিউজিয়ামের বিভিন্ন সেকশন ঘুরে দেখেন। সেখানে তারা খেমার রুজ শাসনের নৃশংসতার সাক্ষ্য প্রত্যক্ষ করেন। মিউজিয়ামের পরিচালক চিহে ভিসথ তাদেরকে বিভিন্ন বিষয়ে ব্রিফ করেন। প্রধানমন্ত্রী গণহত্যাস্থল ঘুরে দেখার পর পরিদর্শন বইয়ে সই করেন।
জাদুঘর পরিদর্শনের সময় শেখ হাসিনার সঙ্গে আরো ছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী, বেসরকারি বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের এসডিজি বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ, বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ-বিডার নির্বাহী চেয়ারম্যান কাজী আমিনুল ইসলাম, পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম। প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী এফবিসিসিআইয়ের সভাপতিসহ অন্যান্য ব্যবসায়ী নেতারাও এসময় উপস্থিত ছিলেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কম্বোডিয়ার প্রধানমন্ত্রী হুন সেনের আমন্ত্রণে ৩ দিনের সফরে আজ বিকেলে সেখানে পৌঁছেন। সফর শেষে মঙ্গলবার বিকালে শেখ হাসিনার ঢাকা ফেরার কথা রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here