কোনো কাজে হাল ছাড়বেন না উল্লেখ করে অস্কারজয়ী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত সফটওয়্যার প্রকৌশলী এবং অ্যানিমেশন বিশেষজ্ঞ নাফিস বিন জাফর তরুণদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, লেগে থাকলেই তাতে আনন্দ খুঁজে পাবেন। আর কোনো কাজে আনন্দ লাভ করতে পারলেই সে কাজে সফল হওয়া সম্ভব।

আজ বৃহস্পতিবার ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডের দ্বিতীয় দিনে অনুষ্ঠিত ‘মিট নাফিস বিন জাফর–দ্য অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ড উইনার’ শীর্ষক সেশনে তরুণদের উদ্দেশ্যে এ কথা বলেন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে নাফিস বলেন, আজ আমি আমার ফিল্ম কেরিয়ার নিয়ে কথা বলব। হয়তো আমার গল্প শুনে কেউ কেউ উদ্বুদ্ধ হতে পারেন। আমার জার্নিটা মসৃণ ছিল না। আমি কাজ করতে করতে শিখেছি। শুরুতে আমি একা ছিলাম। আর এখন আমার সঙ্গে ৫০০ লোক কাজ করছে। সিনেমা তৈরি একার কাজ নয়। এটি একটি টিম ওয়ার্ক।

হলিউডে নিজের ক্যারিয়ার সম্পর্কে নাফিস জানান, ক্যারিয়ারের শুরুতে আমার অনেক সংগ্রাম করতে হয়েছে। এতো সহজেই সফলতার দেখা পাইনি। কাজ করতে করতেই শিখেছি, সামনে এগিয়েছি। বর্তমানে আমার সাথে কাজ করছে প্রায় ৫০০ মানুষ।

অ্যানিমেশনে ক্যারিয়ার গড়া প্রসঙ্গে নাফিস বলেন, এখানে ক্যারিয়ার গড়তে চাইলে প্রোগ্রামিং ভাষা জানতে হবে। সফটওয়্যার প্রকৌশলী হওয়ায় আমার এদিকে ধারণা ছিল। অ্যানিমেশনের বাকি বিষয়গুলো আমি কাজ করতে করতেই শিখেছি।

দেশের তরুণদের প্রশিক্ষণের কোনো পরিকল্পনা আছে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে নাফিস জানান, সি গ্রাফ নামের মার্কিন একটি প্রতিষ্ঠানের সাথে তিনি যুক্ত আছেন। প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশেও কার্যক্রম শুরু করতে যাচ্ছে। এখান থেকে তরুণদের অ্যানিমেশন বিষয়ক প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।

অস্কার জয়ী এই বাঙালি বলেন, আমি ছিলাম একা। শুরুও করেছিলাম একা। আর এখন আমি টিমকে নেতৃত্ব দেই। সবাইকে ম্যানেজ করাই আমার কাজ। আমার স্বপ্ন আমি অন্যদের সহযোগিতায় পূরণ করছি। যার ফলশ্রুতিতে আমি দুবার অস্কার পেয়েছি।

তরুণদের উদ্দেশ্য করে নাফিস বলেন, আপনার যদি এই সেক্টরে কাজ করতে চান তবে থিয়েটারে কাজ করুন। নাটকে কাজ করুন। প্রথমে ছোট গল্প তৈরি করুন। শট ফিল্ম বানান। প্রয়োজনে টিভিতে শিক্ষানবীস হিসেবে কাজ করেন। এসব কাজ করতে করতে আপনি বুঝতে পারবেন আপনার কোন কাজটা ভালো লাগে। একটা নাটক কিংবা ছবিতে শুধু ক্যারেক্টার ছাড়াও পেছনে অনেক কিছু থাকে। সেগুলো খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে দেখতে হবে। না হলে ভালো ফিল্ম মেকার হওয়া যাবে না।

উল্লেখ্য যে, বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নাফিস বিন জাফর ২০০৭ সালে প্রথম অস্কার জেতেন। ′পাইরেটস অব দ্য ক্যারিবিয়ান: অ্যাট ওয়ার্ল্ডস এন্ড′ মুভিতে অ্যানিমেশনের জন্য তিনি এই পুরস্কার জেতেন। পরবর্তীতে ২০১৪ সালে তিনি দ্বিতীয়বারের মতো অস্কার জেতেন ‘২০১২’ ছবিতে ড্রপ ডেস্ট্রাকশন টুলকিট ব্যবহারের জন্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here