রাজনীতিবিদদের সঙ্গে ইফতার করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। সোমবার বসুন্ধরা কনভেনশন সেন্টারের ‘নবরাত্রি হলে’ এই ইফতার অনুষ্ঠানে ছিলেন বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি সাবেক রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরীও।

ইফতারে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট নেতারা ছাড়াও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি‘র সভাপতি আসম আবদুর রব, তার স্ত্রী তানিয়া রব, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান তালুকদার অংশ নেন। তবে তারা কেউই মূল মঞ্চে বসেননি।

ইফতারের আগে সন্ধ্যা ৬টা ২৬ মিনিটে খালেদা জিয়া অনুষ্ঠানস্থলে ঢুকেই প্রথম সারিতে বসা অধ্যাপক একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী, আসম আবদুর রব ও তার স্ত্রী তানিয়া রব, মাহমুদুর রহমান মান্নার টেবিলে এসে বসেন। এ সময় কুশল বিনিয়য় করেন তাদের সাথে। কথা বলেন আসম আবদুর রব ও মাহমুদুর রহমান মান্নার সাথেও।

এ সময় দেশের পরিস্থিতি নিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসনকে বিভিন্ন দলের নেতাদের সঙ্গে খোলামেলা কথা বলতে দেখা যায়।

এই সময়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, নজরুল ইসলাম খান, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান তালুকদার ও জেএসডির সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন, বিকল্পধারার মহাসচিব আবদুল মান্নানও ছিলেন।

এরপর খালেদা জিয়া আমন্ত্রিত অতিথিদের টেবিল ঘুরে ‍কুশল বিনিময় করেন।

মূল মঞ্চে বি চৌধুরী, এলডিপি‘র সভাপতি অলি আহমেদ, কল্যাণ পার্টির সভাপতি সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, জামায়াতে ইসলামীর নায়েবে আমির অধ্যাপক মজিবুর রহমান, ইসলামী ঐক্যজোটের অ্যাডভোকেট এমএ রকিব, জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) টিআইএম ফজলে রাব্বী চৌধুরী, জাগপার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সদ্য প্রয়াত শফিউল আলম প্রধানের স্ত্রী অধ্যাপিকা রেহমান প্রধানসহ ২০ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতাদের নিয়ে মূল টেবিলে ইফতার করেন বিএনপি চেয়ারপারসন।

২০ দলীয় জোটের অন্য শরিকদের মধ্যে খেলাফত মজলিসের মাওলানা সৈয়দ মজিবুর রহমান, আহমদ আবদুল কাদের, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মাওলানা নূর হোসাইন কাসেমী, মাওলানা আবদুর রব ইউসুফী, বিজেপি‘র আবদুল মতিন সউদ, জাতীয় পার্টির মোস্তফা জামাল হায়দার, আহসান হাবিব লিংকন, এলডিপি‘র রেদোয়ান আহমেদ, সাহাদাত হোসেন সেলিম, জাগপা‘র খোন্দকার লুৎফর রহমান, ব্যারিস্টার তাসমিয়া প্রধান, এনডিপি‘র ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা, এনডিপি‘র খন্দকার গোলাম মূর্তজা, লেবার পার্টির মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, হামদুল্লাহ আল মেহেদি, ন্যাপের জেবেল রহমান গানি, গোলাম মোস্তফা ভুঁইয়া, মুসলিম লীগের এএইচএম কামরুজ্জামান খান, শেখ জুলফিকার বুলবুল চৌধুরী, পিপলস লীগের গরীবে নেওয়াজ, সৈয়দ মাহবুব হোসেন, ইসলামিক পার্টির আবু তাহের চৌধুরী, ন্যাপ-ভাসানীর আজহারুল ইসলাম, সাম্যবাদী দলের সাঈদ আহমেদ, ডিএল‘র সাইফুদ্দিন মনি, জাতীয় দলের সৈয়দ এহসানুল হুদা প্রমূখ ইফতারে অংশ নেন।

জামায়াতে ইসলামীর নেতাদের মধ্যে আরও ছিলেন, নায়েবে আমির আ ন ম শামসুল ইসলাম, মিয়া গোলাম পারোয়ার, কর্মপরিষদ সদস্য সেলিম উদ্দিন, মঞ্জুরুল ইসলাম ভূঁইয়া, শামীম সাঈদী প্রমূখ। বিকল্পধারা মহাসচিব অবসরপ্রাপ্ত মেজর আবদুল মান্নানও ইফতারে অংশ নেন।

বিএনপি নেতাদের মধ্যে ইফতারে অংশ নেন মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, আবদুস সালাম, ফজলুল হক মিলন, সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, শামা ওবায়েদ, শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, শাহ নোসারুল হক, তাইফুল ইসলাম টিপু, বেলাল আহমেদ, আমিরুল ইসলাম খান আলিমসহ কেন্দ্রীয় নেতারা।