এবার ডোপ পাপীদের তালিকায় সংযুক্ত হলেন ভারতের সাবেক অলরাউন্ডার ইউসুফ পাঠান। ৩৫ বছর বয়সী এ হার্ডহিটার ব্যাটসম্যানকে ড্রাগ নেয়ার কারণে মঙ্গলবার পাঁচ মাসের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তবে তার নিষিদ্ধের মেয়াদ গণনা করা হয়েছে গত বছরের ১৫ আগস্ট থেকে। এর ফলে জানুয়ারির ১৪ তারিখেই নিষিদ্ধের খাড়া থেকে বের হয়ে যাবেন পাঠান।

ডোপপাপে ৫ মাস নিষিদ্ধ ইউসুফ পাঠান

ভারতের সাবেক এ অলরাউন্ডারের ইউরিনে ‘টার্বুটালাইন’ নামক নিষিদ্ধ ড্রাগের অস্তিত্ব পাওয়া যায়, যেটা সাধারণত কফের সিরাপে ব্যবহার করা হয়। এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছে ভারতীয় ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিসিসিআই।
তবে এই নিষেধাজ্ঞার ফলে ৪ এপ্রিল থেকে শুরু হওয়া ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) একাদশ আসরে খেলতে কোন অসুবিধা হবে না এই তারকার।

বিবৃতিতে বিসিসিআই জানিয়েছে, গত বছরের মার্চে বিসিসিআই-এর অ্যান্টি-ডোপিং প্রোগ্রামের আওতায় দিল্লিতে পাঠানের ইউরিন টেস্ট করানো হয়। টেস্টে টার্বুটালাইন নামক পদার্থের অস্তিত্ব পাওয়া যায়। টার্বুটালাইন এমন এক পদার্থ যা ইনডোর ও আউটডোর উভয় প্রতিযোগিতায় ওয়ার্ল্ড অ্যান্টি-ডোপিং এজেন্সি কর্তৃক নিষিদ্ধের তালিকায় রয়েছে।
গত বছরের অক্টোবরে পাঠানের বিরুদ্ধে বিসিসিআই’র অ্যান্টি-ডোপিং বিধানের আওতায় অ্যান্টি-ডোপিং নীতি ভঙ্গের অভিযোগ আনে কমিশন।

এর জবাবে পাঠান জানিয়েছিলেন, তিনি ভুলক্রমে এমন ওষুধ গ্রহণ করেছেন যেটিতে টার্বুটালাইন ছিলো। কিন্তু তার চিকিৎসায় যে ওষুধ দেয়া হয়েছে তাতে কোনো নিষিদ্ধ পদার্থ নেই।
বিসিসিআই পাঠানের ব্যাখ্যায় সন্তুষ্ট হয়েছে যে, তিনি অসাবধানতাবশতঃ এই ওষুধ গ্রহণ করেছেন। পাঠান পারফরমেন্সবর্ধক ড্রাগ হিসাবে এটি নেননি। সবকিছু বিবেচনায় নিয়ে এবং একজন বিশেষজ্ঞের মতামতে বিসিসিআই পাঠানের ব্যাখ্যা গ্রহণ করে। সেই সাথে কমিশন পাঠানকে পাঁচ মাসের জন্য নিষিদ্ধ ঘোষণা করে।
২০১২ সালের পর থেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের বাইরে থাকা এই হার্ডহিটার ব্যাটসম্যান ভারতের জার্সিতে ৫৭টি ওয়ানডে ও ২২টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছেন।
প্রসঙ্গত, ইউসুফ পাঠানকে ছেড়ে দিয়েছে কলকাতা নাইট রাইডার্স (আইপিএল)। নিলামে তার ভাগ্য নির্ধারিত হতো। বেঙ্গালুরুতে আগামী ২৭ ও ২৮ জানুয়ারি খেলোয়াড়দের নিলাম অনুষ্ঠিত হবে। আগামী ৪ এপ্রিল ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক জমজমাট টি-২০ টুর্নামেন্টটির পর্দা ইঠবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here