বিশ্ব তাবলিগ জামাতের বর্তমান আমির মাওলানা সাদের পদ নিয়ে তাবলিগ জামাতের শীর্ষ মুরব্বীরা দ্বিধাবিভক্ত হয়ে পড়েছেন। আগামী ১০ জানায়ারি থেকে শুরু হওয়া বিশ্ব ইজতেমায় তার অংশ গ্রহণ নিয়ে মুরব্বীরা দ্বিধান্বিত। তাবলিগ জামাতের একটি গ্রুপ তার অংশ গ্রহণের বিরোধিতা করছে। এ অবস্থায় মালয়েশিয়া তাবলিগের শুরা কর্তৃপক্ষ বিশ্ব ইজতেমাকে মালয়েশিয়ায় স্থানান্তরের হুমকি দিয়েছে।

বিশ্ব ইজতেমা মালয়েশিয়ায় সরিয়ে নেয়ার হুমকি

তারা বলছেন, যদি মাওলানা সাদকে বিশ্ব তাবলিগ জামাতের আমিরের পদ থেকে সরিয়ে দেয়া হয় তাহলে বিশ্ব ইজতেমা বাংলাদেশ থেকে মালয়েশিয়ায় স্থানান্তর করা হবে।
রোববার বাংলাদেশ তাবলিগ জামাতের শুরাকে লেখা এক চিঠিতে মালয়েশিয়া তাবলিগের শুরা কর্তৃপক্ষ এই হুঁশিয়ারি দিয়েছে।
এ বিষয়ে বাংলাদেশের তাবলিগের শুরা সদস্যরা জানান, ইজতেমায় মাওলানা সাদের আসা না আসা নিয়ে একটা সমস্যা হয়েছে। তবে এটি সমাধানও হয়ে গেছে।
তাবলিগ সূত্রে জানা যায়, এবারের ইজতেমায় দিল্লির নিজামুদ্দিনের মুরব্বি মাওলানা সাদ সাহেব আসতে পারবেন কিনা এ নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে তাবলিগের শুরা সদস্যদের মধ্যে আলোচনা চলছিল।
গত ২৪ ডিসেম্বর এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানতে বাংলাদেশ থেকে তাবলিগ ও উলামায়ে কেরামের সমন্বিত একটি প্রতিনিধি দল ভারতে তাবলিগের মূলকেন্দ্র নিজামুদ্দিন ও দারুল উলুম দেওবন্দ সফর করে। দেশে ফিরে দলটি একটি প্রতিবেদন পেশ করে।
সফরকারী দলের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মাওলানা সাদ আহলুসসুন্নাহ ওয়াল জামাতের মতাদর্শের সম্পূর্ণ পরিপন্থি অসতর্ক হয়ে যে বক্তব্য দিয়েছিলেন তার জন্য নিজের ভুল স্বীকার করেন। তবে যেভাবে উনাকে ভুল স্বীকার করতে বলা হয়েছিল তিনি সেভাবে তা করেননি।
প্রসঙ্গত, মাওলানা সাদ সাহেব আল্লাহর পয়গাম্বর হজরত মুসা আ. সম্পর্কে ভুল ব্যাখ্যা দিয়েছিলেন বলে অভিযোগ রয়েছে।
কাকরাইল মসজিদের একটি সূত্র জানায়, এবারের বিশ্ব ইজতেমায় মাওলানা সাদ আসতে পারবেন কিনা এ নিয়ে আলোচনা হয় কাকরাইলের শুরা উপদেষ্টা ও ভারতে সফরকারী প্রতিনিধি দলের সঙ্গে। বৈঠকের সিদ্ধান্ত গত রোববার রাতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের হাতে হস্তান্তর করা হয়।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বিষয়টি অবগত হন তবে কিছু বলেননি। কিন্তু মাওলানা সাদ সাহেবের আসা না আসা নিয়ে পক্ষে বিপক্ষে মতামত আসায় সমাধানের সাথে সভার সভাপতি একটি প্রস্তাব পেশ করেন। সভাপতি মুহিউস সুন্নাহ আল্লামা মাহমুদুল হাসান অধিকাংশের মতামতের ভিত্তিতে মাওলানা সাদসহ ৪জন আলেম না এসে তাদের পক্ষ থেকে প্রতিনিধি আসারই সিদ্ধান্ত দেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here