তিন ফিফটিতে ক্যারিবীয়দের ওপর দিয়ে ঝড় বইয়ে দিয়েছিল কিউইরা। অসাধ্য কিছু করেই ম্যাচ জিততে হতো ওয়েস্ট ইন্ডিজকে। কিন্তু বোলিংয়েও সেই কিউই দাপট অব্যাহত। ট্রেন্ট বোল্ট তোপে উড়ে গেলো গেইলবিহীন ওয়েস্ট ইন্ডিজ। অনেকদিন পর ওয়ানডেতে জাতীয় দলের জার্সি গায়ে ফিরলেও প্রথম ওয়ানডের পর অসুস্থ হয়ে পড়ায় এদিন বাদ পড়েন ব্যাটিং দানব।

বোল্টে ঝড়ে সিরিজ কিউইদের

শনিবার নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের হ্যাগলি ওভালে টস জিতে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়ক জেসন হোল্ডার। কিন্তু ম্যাচের সময় গড়াতে গড়াতে পুরোটাই নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয় কিউইরা। ক্যারিবীয় বোলাররা এদিন অধিনায়কের সিদ্ধান্তকে সঠিক প্রমাণ করতে পারেননি।
টস হেরে ব্যাট করতে নেমে নিউজিল্যান্ড হেনরি নিকলস, জর্জ ওয়ার্কার ও রস টেইলরের হাফ সেঞ্চুরিতে বড় সংগ্রহ গড়ে। কলিন মানরোর সঙ্গে ওয়ার্কারের ৫০ রানের উদ্বোধনী জুটি দলকে এনে দেয় উড়ন্ত সূচনা।
টেইলরের সঙ্গে ৫৮ রানের আরেকটি ভালো জুটি গড়ে ফিরেন ওয়ার্কার (৫৩ বলে ৫৮)। অর্ধশতক ছুঁয়ে ফেরেন টেইলর। ৬৬ বলে খেলা তার ৫৭ রানের ইনিংসে ৫টি চার ছিল। কেন উইলিয়ামসের অনুপস্থিতিতে দলকে নেতৃত্ব দেয়া টম ল্যাথাম ফিরেন ২০ রান করে। দৃঢ় ভিতের সুবিধা কাজে লাগিয়ে দলকে তিনশ ছাড়ানো সংগ্রহ এনে দেয়ার কৃতিত্ব নিকোলস ও টড অ্যাস্টলের। ১৬.২ ওভারে দুই জনে গড়েন ১৩০ রানের দারুণ জুটি। নিকলস ৬২ বলে সাতটি চার ও দুটি ছক্কায় ৮৩ রানের হার না মানা ইনিংস খেলেন। এছাড়া ওয়ার্কার ৫৮, রস টেলর ৫৭ ও টড অ্যাশলে ৪৯ রান করেন।

পাহাড়সম রান টপকানোর টার্গেট নিয়ে খেলতে নেমে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত বোল্টের গতিতে বিধ্বস্ত ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ৫২ রানের মধ্যে ফিরিয়ে দেন অতিথিদের প্রথম চার ব্যাটসম্যানকে। বাঁহাতি পেসারের সুইং বোলিংয়ের সামনে টিকতেই পারেননি এভিন লুইস, কাইল হোপ, শেই হোপ ও শিমরন হেটমায়ার।
মিডল অর্ডারে ছোবল দেন লকি ফার্গুসন। গতির ঝড় তোলা পেসার বিদায় করেন জেসন মোহাম্মদ, জেসন হোল্ডার ও রোভম্যান পাওয়েলকে।
ওয়েস্ট ইন্ডিজের ইনিংসে নেই তেমন কোনো জুটি। দলের বিপর্যয়ে প্রতিরোধ গড়তে পারেননি কেউই। সর্বোচ্চ অ্যাশলি নার্সের ২৭।
শেষটায় শেলডন কর্ট্রেল, নার্স ও শ্যানন গ্যাব্রিয়েলকে ফিরিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে গুটিয়ে দেন বোল্ট। অতিথিদের ইনিংসের তখনো বাকি ২২ ওভার।
কিউইদের হয়ে ট্রেন্ট বোল্ট ৩৪ রান খরচায় নেন ৭ উইকেট। ১৭ রানে ৩ উইকেট নেন ফার্গুসন। ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ের জন্য ম্যাচ সেরার পুরস্কার পান বোল্ট।
এদিন ট্রেন্ট বোল্ট ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয় করেন। পাশাপাশি ওয়ানডেতে শততম উইকেট নেয়ার মাইলফলকও স্পর্শ করেন তিনি। নিউজিল্যান্ডের হয়ে এটা ওয়ানডেতে দ্বিতীয় সেরা বোলিং। এই ম্যাচে বিশ্রামে থাকা টিম সাউদির ৭/৩৩ এখনও সেরা।
একই মাঠে আগামী মঙ্গলবার তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডে।