গ্রিপ আর টার্ন, চতুর্থ দিনের শুরু থেকেই বদলে গেছে লর্ডসের ২২ গজ। ৩৩১ রানের লক্ষ্য দিয়ে তাই অনেকটাই নিশ্চিন্ত ছিল ইংল্যান্ড। তবে এভাবে ভেঙে পড়বে দক্ষিণ আফ্রিকা, সেটি হয়তো ভাবতে পারেননি ইংলিশরাও! ১৯ উইকেট পতনের দিনে বিধ্বস্ত প্রোটিয়ারা।

কঠিন লক্ষ্য তাড়ায় লড়াইও করতে পারল না দক্ষিণ আফ্রিকা। জবাব খুঁজে পেল না মঈন আলির স্পিনের। নিজের টানা ৫ ওভারে ৫টিসহ মঈন নিলেন ৬ উইকেট। মাত্র ১১৯ রানেই গুটিয়ে গেল দক্ষিণ আফ্রিকা। লর্ডস টেস্টে ইংল্যান্ড জিতল ২১১ রানে।

চার ম্যাচ সিরিজের প্রথমটি চার দিনে জিতে সিরিজে এগিয়ে গেল স্বাগতিকরা। ইংলিশ ক্রিকেটে রুট-যুগের শুরু হলো দারুণ এক জয়ে।

কেরিয়ার সেরা বোলিংয়ে ৫৩ রানে ৬ উইকেট নিয়েছেন মঈন। আগের সেরা ছিল ৬৭ রানে ৬ উইকেট। প্রথম ইনিংসের চারটিসহ ১০ উইকেট নিলেন ১১২ রানে। ম্যাচে ১০ উইকেটের স্বাদ পেলেন এই প্রথমবার।

দিনের শুরুতে কেশভ মহারাজের বল যেভবে টার্ন করেছে, সেটিই বলে দিচ্ছিল প্রোটিয়াদের অপেক্ষাতেও আছে কঠিন চ্যালেঞ্জ। ৪ উইকেট নেন মহারাজ। ১ উইকেটে ১১৯ রান নিয়ে দিন শুরু করা ইংল্যান্ড থমকে যায় ২৩৩ রানেই।

প্রোটিয়াদের দশা হলো আরো করুণ। শুরুর ব্রেক থ্রু এনে দেন জেমস অ্যান্ডারসন। মাঝে জেপি ডুমিনিকে ফেরান মার্ক উড। বাকি কাজ সেরেছেন দুই স্পিনার মঈন ও লিয়াম ডসন।

প্রথম ওভারে উইকেট নেয়ার পরও উডকে আর বোলিং করাননি জো রুট। নতুন বলে ব্রডও করেছেন ১ ওভার। এটাই বলে দিচ্ছে, উইকেটে স্পিন কতটা ধরেছে।

প্রমোশন পেয়ে পাঁচে নামা কুইন্টন ডি কক ও প্রথম ইনিংসে প্রতিরোধ গড়া টেম্বা বাভুমা চেষ্টা করছিলেন প্রতিরোধের। কিন্তু মঈনের বলে বোল্ড হয়েছেন দুজনই। মাত্র ৩৬.৩ ওভারেই গুটিয়ে যায় দক্ষিণ আফ্রিকা, চতুর্থ দিনের খেলার তখনো এক ঘণ্টার বেশি বাকি!

নেতৃত্বের অভিষেকে ১৯০ রানের দুর্দান্ত ইনিংস আর জয়ে রাঙালেন রুট। তবে ৮৭ রানের দারুণ ইনিংসের পাশে ম্যাচে ১০ উইকেট নিয়ে ম্যান অব দ্য ম্যাচ মঈন আলি।

পরের টেস্ট ট্রেন্ট ব্রিজে আগামী শুক্রবার থেকে। নিষেধাজ্ঞার খাড়ায় ম্যাচটিতে খেলতে পারবেন না কাগিসো রাবাদা। তবে দক্ষিণ আফ্রিকার একটা সুসংবাদ, ফিরে পাবে তারা নিয়মিত অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসিসকে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ইংল্যান্ড ১ম ইনিংস: ৪৫৮

দক্ষিণ আফ্রিকা ১ম ইনিংস: ৩৬১

ইংল্যান্ড ২য় ইনিংস: ২৩৩

দক্ষিণ আফ্রিকা ২য় ইনিংস: (লক্ষ্য ৩৩১) ৩৬.৩ ওভারে ১১৯ (এলগার ৯, কুন ২, আমলা ১১, ডু মিনি ২, ডি কক ১৮, বাভুমা ২১, ডি ব্রুইন ১, ফিল্যান্ডার ১৯*, মহারাজ ১০, রাবাদা ৪, মর্কেল ১৪; অ্যান্ডারসন ১/১৬, ব্রড ০/৫, মঈন ৬/৫৩, উড ১/৩, ডসন ২/৩৪)।

ফল: ইংল্যান্ড ২১১ রানে জয়ী

সিরিজ: ৪ ম্যাচ সিরিজে ইংল্যান্ড ১-০-তে এগিয়ে

ম্যান অব দ্য ম্যাচ: মঈন আলি