কথায় বলে মামা খালু ছাড়া চাকরি হয় না। যাদের মামা খালু নেই, তারা মাথার ঘাম পায়ে ফেলে চাকরির জন্য প্রস্তুতি নেয়। চোখ কান খোলা রেখে, ইন্টারভিউয়ের জন্য ব্যাপক প্রস্তুতি থাকার পরও চাকরি হয় না। কারণ চাকরি নামের এই সোনার হরিণটা খোঁজা থেকে শুরু করে ইন্টারভিউ পর্যন্ত অনেক কিছুই আপনার নিয়ন্ত্রণে থাকে না।

হন্য হয়ে চাকরি খুঁজছেন? চাকরি খোঁজার আগে কিছু প্রস্তুতি নিন।

নিজেকে মানসিকভাবে তৈরি করার পাশাপাশি প্রস্তুত করুন চাকরির জন্য প্রয়োজনীয় দক্ষতা। যোগ্যতা, অভিজ্ঞতা বাড়াতে সাহায্য করবে এই পদক্ষেপগুলো।

শিক্ষাগত যোগ্যতা অনুযায়ী ভাবুন
আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা কি? বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজ, কোন পর্বটি শেষ করেছেন? এর বাইরে আর কোন অভিজ্ঞতা আছে কি? শিক্ষাগত যোগ্যতা অনুযায়ী ভাবুন, কোন প্রতিষ্ঠানের কোন চাকরিটি আপনার জন্য উপযোগী।

সিভি তৈরি করুন
চাকরি দাতার নিকট নিজেকে প্রকাশ করার অন্যতম মাধ্যম হল সিভি। একটি ভালো সিভি চাকরি দাতার নিকট আপনার যোগ্যতাই শুধু নয়, আপনার ব্যক্তিত্বও প্রকাশ করবে। তাই গতানুগতিক ধারার সিভি তৈরি না করে, অন্য দশ জন থেকে নিজেকে অধিক যোগ্যতা সম্পন্ন ও ব্যক্তিত্ববান প্রকাশ করতে ভিন্ন ধারার সিভি তৈরি করুন। ভুল করে হলেও অন্যর সিভি কিংবা ওয়েব সাইট থেকে সিভি কপি করবেন না। আপনার যোগ্যতা, ক্ষমতা, গুণাগুণ ভালোভাবে তুলে ধরুন। নিজেকে ভিন্ন ভাবে উপস্থাপন করুন। ভিন্ন ভিন্ন চাকরির জন্য ভিন্ন ভিন্ন সিভি তৈরি করুন। সবসময় সিভি আপডেট করুন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম গুলোতে সক্রিয় থাকুন
আপনার আশে পাশের মানুষগুলো সামাজিক যোগাযোগের বিভিন্ন মাধ্যম ব্যবহার করে থাকেন। ফেসবুক, ট্যুইটার, লিঙ্কডইন(ক্যারিয়ার নেটওয়ার্ক)। এইসব মাধ্যম গুলো বেশীরভাগ মানুষ একধরনের বিনোদন মনে করে। বিনোদন হিসেবে নয়, নিজের চাকরির প্রয়োজনে এইসব মাধ্যম গুলোতে একাউন্ট করুন। বিভিন্ন সেক্টরের লোকজনের সঙ্গে যোগাযোগ তৈরি করুন, আপনি জানেন না কে কখন আপনার কাজে লাগবে। যারা এরই মধ্যে প্রতিষ্ঠিত, শুরুতেই তারা আপনাকে গুরুত্ব নাও দিতে পারে। তবুও নিয়মিত তাঁদের স্ট্যাটাস গুলো পড়ুন, লাইক দিন। গঠনমুলক মন্তব্য করুন। ধীরে ধীরে আপনি তাঁদের নজরে পড়বেন। আপনার প্রতি তাদের আস্থা আসবে। ধৈর্য্য নিয়ে অপেক্ষা করতে হবে। ভালো যোগাযোগ তৈরি হলে একসময় সুফল পেতে শুরু করবেন।

কোথায় খুঁজবেন, কিভাবে?
চাকরি খোঁজার অনেক মাধ্যম আছে। ওয়েবসাইট, সংবাদপত্র, জব ফেয়ার ইত্যাদি। বিভিন্ন জব ওয়েব সাইটে গিয়ে চাকরির খোঁজ করুন, নিজের সিভি তৈরি করুন। বিভিন্ন সংবাদপত্রে চাকরির বিজ্ঞাপন দেয়া থাকে। আবার কোন কোন পত্রিকা শুধু চাকরির বিজ্ঞাপনই প্রকাশ করে থাকে। অনেক সময় বিভিন্ন লাইব্রেরি, নিউজ স্টল গুলোতে চাকরির বিজ্ঞাপন গুলো বোর্ডে লাগিয়ে দেওয়া হয়। নিয়মিত যোগাযোগ রাখুন। জব ফেয়ার গুলোতে নিয়মিত যোগ দিন। বেশীরভাগ চাকরি দাতা গন জব ফেয়ারে সরাসরি নিয়োগ দিয়ে থাকেন। অনেক সময় ব্যক্তিগত যোগাযোগে চাকরি হয়। পরিচিত মানুষগুলোকে বিনয়ের সহিত ব্যবহার করুন, সিভি দিন। সমসময় তাদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করুন। ভাগ্য সুপ্রসন্ন থাকলে তাঁদের প্রতিষ্ঠানে আপনি নিয়োগ পেতে পারেন।

আলাদা ইমেইল একাউন্ট করুন
একটি আলাদা ইমেইল একাউন্ট তৈরি করুন। এই ইমেইলটি সিভিতে উল্ল্যেখ করুন। চাকরি খোঁজা ছাড়া অন্য কোন কাজে এই ইমেইল ব্যবহার করবেন না। আজকাল বেশীরভাগ চাকরির জন্য ইমেইলে-ই এর মাধ্যমেই যোগাযোগ করা হয়।

আড়াল থেকে নিজেকে বের করুন
সিভি জমা দিয়ে চাকরি দাতার যোগাযোগের অপেখক্ষায় থাকবেন না। নিজে প্রতিষ্ঠানে গিয়ে খোঁজ নেওয়ার চেষ্টা করুন। পরিচিত কেউ থাকলে কিংবা সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার সাথে কথা বলার চেষ্টা করুন, যিনি চাকরি পাওয়ার ক্ষেত্রে প্রভাববিস্তার করতে পারে। যদি এই চাকরির জন্য নিজেকে যোগ্য মনে করেন কিংবা প্রমান করতে সক্ষম হন, তাহলে চাকরিটি পাওয়ার অনুরোধ করতে পারেন সরাসরি। এই ক্ষেত্রে আপনার অযোগ্য হওয়ার কোন ভয় নেই, বরং আপনার সাহস আরো বাড়বে, বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় আপনি আরো দক্ষ হবেন। এতে আপনার আত্মবিশ্বাসই কর্তৃপক্ষকে বিশ্বাসী করে তুলতে পারে।

ইন্টারভিউকে ভয় পাবেন না
প্রতিষ্ঠান যেমনই হোক, ইন্টারভিউয়ে বসে নিজেকে খোলাখুলি উপস্থাপন করুন। আপনি কি পারেন, কি কি চ্যালেঞ্জে কি কি উপায়ে মোকাবিলা করতে পারবেন, সবকিছু ভালোভাবে উপস্থাপন করুন। সবসময় ডায়েরী মেইন্টেন করুন। কোথায় কোথায় আবেনদন করেছেন, কি পদে আবেদন করেছেন তা লিখে রাখুন। নিজের সকল যোগ্যতার কাগজপত্রও প্রস্তুত রাখুন। যখন যেখানে ডাক পাবেন, সময় নষ্ট না করে নিজেকে তৈরি রাখুন, সবসময় আত্মবিশ্বাসী হোন।

যদি কোন অভিজ্ঞতা না থাকে
কোন কোন প্রতিষ্ঠান নতুন কাউকে নিয়োগ দিয়ে তাকে ট্রেনিং দিয়ে নেয় বা তাকে শিক্ষানবিশ হিসেবে নিয়োগ দেয়। যদি কোন অভিজ্ঞতা না থাকে
এইসব প্রতিষ্ঠানে যোগাযোগ করুন। ছয় মাস/ এক বছর শিক্ষানবিশ হিসেবে কাজ করে প্রাথমিক দায়িত্ব নিজ দায়িত্বে আয়ত্ত করে নিন, নিজের যোগ্যতা প্রমান করুন কিংবা অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করে অন্যত্র কাজে সন্ধান করুন। স্থায়ীত্ব পাওয়ার আশায় সময় নষ্ট করবেন না। সামাজিক কাজ কর্মে নিজেকে নিয়োজিত রাখুন। সামাজিক কাজ গুলো চাকরি দাতার নিকট অনেক সময় অভিজ্ঞতা হিসেবে গন্য হয়। তাছাড়া দক্ষতা বাড়ানোর জন্য বিদেশী ভাষা শিক্ষা, কম্পিউটার প্রশিক্ষণ নিতে পারেন। বিভিন্ন সরকারী প্রতিষ্ঠানে বিনামুল্যে কিংবা নামমাত্র খরচে এই প্রশিক্ষণ নিতে পারেন।

রেফারেন্স ব্যবহার করুন
রেফারেন্স একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। তাই সিভিতে পরিচিতজনদের মধ্যে বড় পদাধিকারী কেউ থাকলে তার রেফারেন্স দিন। যারা কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের গন্ডি পেরিয়েছেন, তারা শিক্ষকদেরকে রেফারেন্স হিসেবে দেখাতে পারেন। এটি চাকরি পাওয়ার জন্য দারুণ কাজে দেয়। তা ছাড়া চাকরিদাতারও আস্থা অর্জন করা যায়। যাকে রেফারেন্স হিসেবে ব্যবহার করবেন, তার নিকট থেকে অনুমতি নিয়ে নেবেন এবং চাকরির আবেদন সম্পর্কে নিয়মিত আপডেট দিবেন।

একধাপ এগিয়ে থাকুন
কখনো থামবেন না। চাকরির খুঁজে খুঁজে না পেয়ে হতাশ হবেন না। যেসব প্রতিষ্ঠানে সিভি জমা দিয়েছেন সেসব প্রতিষ্ঠানে নিয়মিত খোঁজ রাখুন। যদি চাকরি করার বাসনা থাকে, শিক্ষাজীবন থেকে চাকরি যুদ্ধে লড়াই এর জন্য নিজেকে প্রস্তুত করে অন্যের চেয়ে এক ধাপ এগিয়ে থাকুন। মনে রাখবেন এগিয়ে থাকার কোন বিকল্প নাই।