তিনি বহাল তবিয়তে বেঁচে আছেন। কিন্তু মুম্বাইয়ের এলফিনস্টোন স্টেশনের ফুট ওভারব্রিজে পদপিষ্ট হয়ে মৃতদের তালিকায় জ্বলজ্বল করছে ইমরান শেখের নাম।

পেশায় কাপড় ব্যবসায়ী ৩৫ বছরের ইমরান জানান, যে ওই দুর্ঘটনায় তিনি মারা যাননি। কারণ ব্যবসার কাজে নিয়মিত পারেল থেকে দাদার যাতায়াত করলেও সেদিন দাদার স্টেশনে নেমে গিয়েছিলেন ইমরান। পারেল স্টেশনে নামেন তার কাকা, ৩৮ বছরের মাসুদ আলম। দুর্ঘটনায় তার মৃত্যু হয়।

ইমরান আরও জানান, মৃতদের ছবি দিয়ে ব্যানারের জন্য আলমের ছবি চেয়ে সংবাদমাধ্যমের প্রতিনিধিরা তাকে ফোন করেছিলেন। সেই মুহূর্তে তার কাছে থাকা আলম এবং তার একসঙ্গে ছবিটি পুলিশকে পাঠিয়ে দেন ইমরান। কিন্তু ব্যানারে তাদের দুজনের ছবিই টাঙিয়ে দেওয়া হয়। তারপর থেকেই বিভিন্ন জায়গা থেকে ফোন পেতে শুরু করেন ইমরান।

বিষয়টি তিনি সংবাদমাধ্যমে জানালে তারা ভুল শুধরে নিলেও ব্যানার থেকে এখনও সরেনি ইমরানের নাম। রেলের ডিভিশনাল ম্যানেজার মুকুল জৈন পুলিশকে বিষয়টি খতিয়ে দেখতে নির্দেশ দিয়েছেন। রেলের এক কর্মকর্তা বলেন, যেহেতু মানুষের আবেগ জড়িয়ে আছে তাই রাতারাতি ওই ব্যানার সরানো সম্ভব নয়। কিন্তু এব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করা হবে।