‘দলের একজন ক্রিকেটার যখন বিশ্বমানের হয়ে যায়, সেটা অন্যদের অনুপ্রাণিত করে। সাকিব বলেন বা তামিম, তাদেরকে দেখে অনেক শেখার থাকে। তারা যখন সাফল্য পেয়েছে, তখন সেই বিশ্বাসটা পুরো দলে ছড়িয়ে পড়ে। ‘ এভাবেই দলের দুই বড় তারকাকে নিয়ে বলছিলেন ‘মি. ডিপেন্ডেবল’ খ্যাত জাতীয় টেস্ট দলের অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। ‘বড় তারকা’র তালিকায় যে তিনিও অন্যতম সেটা উল্লেখ না করলেও চলে।

আজ চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে এসব কথা বলেন মুশফিকুর রহিম। বাংলাদেশ এখন অনেক বদলে গেছে। দুই-একজন পারফর্মার নির্ভর বাংলাদেশ এখন আর নেই। প্রায় প্রতিটি সিরিজেই আসছে দলগত সাফল্য। আর এর পেছনে আছেন সাকিব-তামিম-মাশরাফিদের মত বিশ্বমানের সিনিয়র তারকারা। তাদের সাফল্য দেখে আত্মবিশ্বাস পেয়েছে দলের বাকীরা।

তাই এক সময়ের ছন্নছাড়া বাংলাদেশ দল হয়ে উঠেছে ‘টিম টাইগার’।
মুশফিক আরো বলেছেন, ‘এছাড়া মাশরাফি ভাই আছেন, রিয়াদ ভাই আছেন। তারা ভালো খেললে তরুণরাও অনেক অনুপ্রাণিত হয় যে, বড় ভাইরা ভালো খেলতে পারলে আমরা কেন পারব না? আমরা একটা দল হিসেবে যখন বিশ্বাস করতে শুরু করলাম যে আমরা পারি, তখন থেকে বদলানোর শুরু। ‘

একটা দলকে বদলানোর জন্য খালি স্বপ্ন দেখলেই হবে না; তার জন্য যোগ্য ব্যক্তিরও প্রয়োজন। বাংলাদেশে এখন অনেক যোগ্য ক্রিকেটার আছে। টেস্ট অধিনায়কের কণ্ঠে ফুটে উঠল তার সতীর্থদের নিয়ে আত্মবিশ্বাস, ‘শুধু স্বপ্ন দেখলে হবে না, সে সামর্থ্যের ক্রিকেটার থাকতে হবে। এখন বাংলাদেশ দলে তা আছে। এজন্য উন্নতিটা বেশি। টেস্টেও আমাদের বিশ্বাসটা এসেছে। ‘

সেই বদলে যাওয়া বাংলাদেশকে এখন নতুনভাবে চিনছে ক্রিকেট বিশ্ব। এই বদলে যাওয়া বাংলাদেশ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছে। চ্যাম্পিয়নস ট্রফির সেমিফাইনাল খেলেছে। ঘরের মাটিতে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট জিতেছে। দেশের বাইরে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তিন ফরম্যাটেই সিরিজ ড্র করেছে। তাই বাংলাদেশ সফরে আসার প্রাক্কালে সাবেক অজি গ্রেট ইয়ান চ্যাপেল স্মিথদের সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, বাংলাদেশে তাদের কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হবে।