হারানো ছেলেকে খুঁজে পেতে চষে বেড়িয়েছেন দিল্লি থেকে হরিয়ানা। হরিয়ানা থেকে আগ্রা। কিন্তু কোথাও হদিস মেলেনি তার। গেলো প্রায় ছয় মাস সাইকেল চালিয়ে ছেলেকে খুঁজে বেড়াচ্ছেন সতীশ চন্দর।
উত্তর প্রদেশের বাসিন্দা তিনি। পেশায় কৃষক।

হারানো ছেলের খোঁজে সাইকেলে ১৫০০ কিলোমিটার!

গেলো জুনে সতীশের ১১ বছরের প্রতিবন্ধী ছেলে গডনা হারিয়ে যায়। স্কুল থেকে আর বাড়ি ফেরেনি সে। পরে সাইকেল নিয়ে নিজেই বেরিয়ে পড়েছেন ছেলের খোঁজে।
প্রথমে অবশ্য পুলিশের কাছে সাহায্য চান। কিন্তু তাদের কাছ থেকে তেমন সাড়া মেলেনি।
অবশেষে হতাশা নিয়েই ফিরতে হয় আটচল্লিশ বছর বয়সী সতীশকে।
কিন্তু মানসিক শক্তি তাকে দমাতে পারেনি। এক বুক আশা নিয়ে ভাঙা সাইকেলেই পাড়ি দিচ্ছেন এখান থেকে সেখানে।
সতীশের ভাষায়, কিভাবে এতটা পথ পাড়ি দিয়েছি, সে উত্তর নেই। শুধু ছেলেকে পেতে চাই।
দরিদ্র এই কৃষক বলেন, লোকে আমাকে জিজ্ঞাসা করে কেন আমি এমন পদক্ষেপ নিলাম। কিন্তু তারা বোঝে না, সন্তান হারিয়ে যাওয়ার যন্ত্রণা কতটা বেশি।
তিনি জানান, ২০০৫ সালে অসুখে ভুগে মারা যায় তার মেয়ে সারিতা। আর ২০১১ সালে মারা যায় তার অন্য সন্তান। গত জুনে নিখোঁজ হয়ে গডনাও। একমাত্র সন্তানকে খুঁজে পেতে পিছনে তাকানোর সময় তার নেই।