চোখের সমস্যা নিয়ে রাজধানীর ধানমন্ডি র একটি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন একুশে পদকপ্রাপ্ত বরেণ্য অভিনেতা এটিএম শামসুজ্জামান। গতকাল শুক্রবার চোখের সমস্যা বেগতিক দেখে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয় বলে নিশ্চিত করেছে তার পরিবার।

আজ ২৬ আগস্ট শনিবার বিকেলে তার ডান চোখে অস্ত্রোপচার হবে বলে জানা গেছে। এজন্য তিনি সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন। ছোটবেলা থেকেই এটিএম শামসুজ্জামানের ডান চোখে ছোট্ট একটি কালো দাগ ছিল। দাগটি চোখের ভিশনে সমস্যা করত। কিন্তু করবেন করবেন বলে সেভাবে কোনো চিকিৎসা করাননি তিনি। ১০ বছর আগে সমস্যা সমাধানে ভারতের মাদ্রাজের একটি হাসপাতালে গিয়েছিলেন।
সেখানে অপারেশনের জন্য দীর্ঘ পাঁচ ঘণ্টা বসে থাকার পর রাগ করে চলে আসেন। এমনটিই জানিয়েছেন তার পরিবার। এরপর দেশে এসে প্রাথমিক চিকিৎসা ছাড়া বড় ধরনের কোনো চিকিৎসা করাননি তিনি। বর্তমানে সমস্যা প্রকট হওয়াতে অবশেষে আবারও অপারেশনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

এ প্রসঙ্গে এটিএম শামসুজ্জামান বলেন, ‘ইদানীং চোখে একটু বেশিই যন্ত্রণা হচ্ছে। এজন্য আমার স্ত্রীর সঙ্গে পরামর্শ করে চোখে অপারেশনের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন যেন অপারেশন শেষে আবার সব ভালোভাবে দেখতে পারি।’

এটিএম শামসুজ্জামান একজন কাহিনিকার, সংলাপ রচয়িতা, চিত্রনাট্যকার, চলচ্চিত্র পরিচালক এবং অভিনেতা। সহকারী পরিচালক হিসেবে যাত্রা শুরু করে লেখক হিসেবে সুনাম অর্জন শেষে অভিনয়ে থিতু হন তিনি। চলচ্চিত্র নির্মাণ কাজেও নিজেকে যুক্ত করেছেন বছর কয়েক আগে। ১৯৬৫ সাল থেকে চলচ্চিত্রে অভিনয় শুরু করেন।
অভিনয়ে সাফল্য লাভ করলেও এটিএম শামসুজ্জামান মনে করেন কপালগুণে তিনি অভিনেতা হয়ে গেছেন, তিনি হতে চেয়েছিলেন সাহিত্যিক। বিখ্যাত লেখক সাহিত্যিক ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ, সত্যেন সেন, রণেশ দাসগুপ্ত, উদয়ন চৌধুরী, খালেদ চৌধুরী প্রমুখ ব্যক্তির সংস্পর্শ এবং অনুপ্রেরণা তাকে এ পর্যায়ে নিয়ে এসেছে। ড. শহীদুল্লাহ তার আত্মীয় ছিলেন। এ পর্যন্ত প্রায় শতাধিক চলচ্চিত্রের চিত্রনাট্যকার এবং প্রায় তিন শতাধিক চলচ্চিত্রের অভিনয় করেন এটিএম শামসুজ্জামান।